Breaking News
Home / Bangladesh / প্রকাশিত হল আলোচিত ৪মিনিট ১৪ সেকেন্ডের ভিডিওটি !দেখলে আপনারো মাথা নষ্ট হবে………ভিডিও সহ

প্রকাশিত হল আলোচিত ৪মিনিট ১৪ সেকেন্ডের ভিডিওটি !দেখলে আপনারো মাথা নষ্ট হবে………ভিডিও সহ

ইন্ডিয়ার একটি কলেজের মেয়ের অসাধারন একটি নাচ !!! দেখুন ভিডিও সহ

বি: দ্র : ই্উটিউব থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ই্উটিউব চ্যানেল এর

এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা।

ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে। প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য

ভিডিওটি দেখতে নিচে যান

” অপুর আগেই শাকিবের সাথে বিয়ে হয়েছে আমার ঃ কাবিননামা সহ প্রমাণ,বোমা ফাটালেন বুবলি !
অপুর আগেই শাকিবের সাথে বিয়ে হয়েছে আমার ঃ কাবিননামা সহ প্রমাণ,বোমা ফাটালেন বুবলি !

পুরো দেশজুড়ে চলছে শাকিব অপু নিয়ে ইস্যু! চলছে তর্ক বিতর্ক , গুজব গুঞ্জন । কেউ পক্ষ নিচ্ছেন শাকিবের কেউবা অপুর । তবে যার জন্য এত তোলপাড় এত হইচই বলে দাবি অপু পক্ষের , সেই বুবলিও অবশেষে মুখ খুললেন । নিজ বাসায় আজ দুপুরে সংবাদ কর্মীরা শাকিব অপু ইস্যুতে তার অবস্থান জানতে চাইলে তিনি শাকিবের সাথে কিন্নিতুজের সম্পরককে সুদীর্ঘ বলে দাবি করেন । অপুর বিয়ের আগেই শাকিব তার সাথে সম্পর্ক করেছে এরকম ও দাবি জানান বুবলি ।

অপুর দাবি অনুযায়ি শাকিবের সাথে সংসার ৯ বছরের , তবে কি এর আগেই শাকিব বুবলির পরিচয় ? সে সময় ত তিনি মিডিয়াতে অপরিচিত ছিলেন । এ প্রসঙ্গে মিডিয়ার হাতে আসা কথিত সেই কাবিননামা যেখানে বুবলি র প্রদত্ত নামের উল্লেখ আছে তার সত্যতা সম্পরকে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন , ” কাবিন বা বিয়ে এর কোনটাই যেহেতু শাকিব এখন মিডিয়াকে জানাননি , তিনিও এ বিষয়ে আগেই কিছু বলবেন না । তবে শেষ পর্যন্ত শাকিব তার দিকেই আগাচ্ছেন , এমনটাই যেন কথার আভাসের সুর পাওয়া গেলো বুবলির ভাষ্যে । প্রমাণ মিলেছে শাকিবের বর্তমান সিদ্ধান্তেই । অনেকেই ভেবেছিল , শাকিব হয়ত সন্তানের কথা ভেবে সংসার ধরে রাখবেন কিন্তু

বিবাহিত জীবনের দীর্ঘ নয় বছরেরও বেশি সময় পার করে জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান কেন তালাক দিলেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের নায়িকা অপু বিশ্বাসকে?

আজ সোমবার বিকেল থেকেই এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। কী কারণে সন্তানের জন্মের এক বছর পেরোতেই স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ চাইছেন নায়ক, সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজে ফিরছেন সবাই। আর তা ছাড়া এ বিষয়ে স্পষ্ট করে গণমাধ্যমকে কিছু বলছেনও না শাকিব খান। শুধু জানিয়েছেন, তালাকনামায় তিনি সই করেছেন। ব্যস এটুকু বলেই আবার শ্যুটিংয়ে মন দিয়েছেন তিনি।

অপুকে তালাক দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শাকিব খানের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম। আজ সন্ধ্যায় তিনি এনটিভিকে বলেন, ‘শাকিব খান তাঁর স্ত্রী অপু ইসলাম খান ওরফে অপু বিশ্বাসকে তিনি নিজে ডিভোর্স দিয়েছেন এবং ডিভোর্স দেওয়ার পরে যেটা মুসলিম পারিবারিক আইনের ৭-এর ১ ধারা মোতাবেক কনসার্ন পারসনকে জানানোর কথা যাকে ডিভোর্স দিল। অপু বিশ্বাসের ঢাকার ঠিকানায়, তাঁর পারমানেন্ট অ্যাড্রেস বগুড়ার ঠিকানায় এবং তিনি যেখানে বসবাস করেন কনসার্ন নর্থ সিটি করপোরেশনের মেয়র মহোদয়কে কপি দিয়েছেন, এটা আমার জানামতে।’

কী কারণে ভেঙে যাচ্ছে এত বছরের সম্পর্ক? জানতে চাইলে সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘কারণ হলো, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তাঁর (অপু বিশ্বাস) কাছ থেকে প্রতিদান পান নাই এবং তাঁর (শাকিব খান) পছন্দের সীমার মধ্যে অপু বিশ্বাসকে অর্থাৎ অপু ইসলাম খানকে কখনোই তিনি আনতে পারেন নাই।’

আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম আরো জানান, গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যায় শাকিব খান তাঁর চেম্বারে আসেন। সেখানে তিনি অপুকে তালাক দেওয়ার ব্যাপারে তাঁর কাছে আইনগত সহায়তা চান।

এরপর শাকিব খানের পক্ষে আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলামের অফিস থেকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র কার্যালয়, অপু বিশ্বাসের ঢাকার নিকেতনের বাসা এবং বগুড়ার ঠিকানায় তালাকের নোটিশ পাঠানো হয়।

২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিয়ে হয়। এই দম্পতির এক বছর বয়সী এক ছেলেসন্তান রয়েছে।

এর আগে আজ সন্ধ্যায় এনটিভি অনলাইনের কাছে অপুকে তালাক দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন শাকিব খান। তবে বারবার চেষ্টা করা হলেও ফোন ধরেননি অপু বিশ্বাস।

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খান তাঁর স্ত্রী চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে তালাকনামা পাঠিয়েছেন। তবে অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে তাদের কি তালাক কার্যকর হয়েছে?

মুসলিম পারিবারিক আইন অনুসারে, স্বামী বা স্ত্রী যে কাউকে তালাক দিতে পারবেন। তবে সে তালাক কার্যকর হওয়ার ক্ষেত্রে কিছু আইনগত প্রক্রিয়া রয়েছে। এনটিভি অনলাইনের পাঠকদের সুবিধার্থে তালাক সংক্রান্ত আইন তুলে ধরা হলো।

১৯৭৪ সালের মুসলিম বিবাহ ও তালাক রেজিস্ট্রেশন আইন অনুযায়ী, তালাক দেওয়ার পর সেই সংক্রান্ত নোটিশ স্বামীর মাধ্যমে স্ত্রীকে অথবা স্ত্রীর মাধ্যমে স্বামীকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ/পৌরসভা/সিটি করপোরেশনকে পাঠাতে হবে।

নোটিশ পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান/মেয়র সালিসি পরিষদ গঠন করবেন এবং স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সমঝোতা করার চেষ্টা করবেন।

এর মধ্যে সালিসি পরিষদ ৯০ দিন সময় পাবে। এর মধ্যে তারা প্রতি ৩০ দিনে একটি করে মোট তিনটি নোটিশ দেবে বর ও কনেকে। এই সময়ে স্বামী নোটিশ প্রত্যাহার না করলে ৯০ দিন পর তালাক কার্যকর হবে। কিন্তু নোটিশ প্রত্যাহার করলে তালাক কার্যকর হবে না।

আইন অনুযায়ী, স্বামী একতরফাভাবে ইচ্ছেমতো তালাক দিতে পারেন। এটি স্বামীর একতরফা ক্ষমতা।

এদিকে স্ত্রী অভিনেত্রী অপু বিশ্বাসের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটাতে তালাকনামায় সই করেছেন বলে জানিয়েছেন বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খান। গত মাসেই তালাকনামায় সই করেন বলে আজ সোমবার এনটিভি অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

সন্ধ্যায় এনটিভি অনলাইনকে শাকিব খান জানান, একটি চলচ্চিত্রের শুটিং করতে গত ১ ডিসেম্বর ভারতের হায়দরাবাদে যান তিনি। সেখানে যাওয়ার আগেই তালাকনামায় সই করেন।

শাকিব খান বলেন, ‘ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছি। তবে সেটি আজ পৌঁছেছে কি না, তা জানি না। আইনজীবীর সঙ্গে আমার এ বিষয়ে আজ কোনো কথা হয়নি। দুই দিন ধরেই বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন ছিল।’

হায়দরাবাদের রামুজি ফিল্ম সিটিতে ‘নোলক’ নামের একটি ছবির শুটিংয়ে এখন ব্যস্ত শাকিব খান। ছবিতে তাঁর বিপরীতে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা ববি। আগামী ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে এই ছবির শুটিং। এরপর শাকিবের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

এর আগে আজ শাকিবের পাঠানো তালাকনামা অপু বিশ্বাসের বাড়িতে পৌঁছায় বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। শুরুতে এটিকে অনেকে গুঞ্জন মনে করলেও শাকিবের ঘনিষ্ঠ বন্ধু প্রযোজক মোহাম্মদ ইকবাল জানান, অপু বিশ্বাসকে তালাকনামা পাঠিয়েছেন শাকিব।

তবে এ বিষয়ে অপুর কোনো বক্তব্য এখনো পাওয়া যায়নি।

গত এপ্রিলে ঢাকাই ছবির নতুন নায়িকা শবনম বুবলীর সঙ্গে শাকিব ঘরোয়া পরিবেশে একটি ছবি তোলেন। ছবিটিতে ‘ফ্যামিলি টাইম’ ক্যাপশন লিখে নিজের সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রকাশ করেন বুবলী। এর পরই অপু বিশ্বাসের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটে শাকিব খানের। ছবিটি প্রকাশের পর পরই গণমাধ্যমে দীর্ঘদিন গোপনে থাকা বিয়ে ও সন্তানের বিষয়টি খোলাসা করেন অপু।

শবনম বুবলি
চিত্রনায়ক শাকিব খান ও চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসের বিয়ে-সন্তান নিয়ে গতকাল সোমবার বিকেল থেকে নাটকীয় সব ঘটনা সামনে আসছে। দুজনের সম্পর্ক নিয়ে চলা তুমুল আলোচনায় আরেক চিত্রনায়িকা শবনম বুবলির নাম এসেছে। অবশ্য বেশ কিছুদিন ধরেই শাকিব-অপু-বুবলি—এই ত্রিভুজে নানা কথা ঘুরপাক খাচ্ছে। এর মধ্যে মুখ খুললেন বুবলি। আজ মঙ্গলবার সকালে ফেসবুকে এক পোস্টে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন তিনি। তাঁর ফেসবুক পোস্টের পরিমার্জিত রূপ পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলো। এখানে তিনি নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করে উত্তর দিয়েছেন। তা হচ্ছে:

ব্যাপারটি ইমোশনাল নাকি প্রফেশনাল?

কোনটা?

হুম্‌ম্‌, একটু ভেবে বললে ভালো।

জানি, আপনারা এখন অনেকেই অনেক কিছু ভাবছেন। আমাদের দেশে মাঝে মাঝে কিছু কিছু ইস্যু সবার সামনে এসে দাঁড়ায়, যখন অধিকাংশ (সবাই না) মানুষ হুমড়ি খেয়ে একতরফা জাজমেন্ট করতে শুরু করে। আর এদের মধ্যে যারা একটু ভিন্নভাবে ভাবতে চায়, তাদের যে কত কথা শুনতে হয়, তা না হয় না-ই বললাম। একদম সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে যদি কথা হয়, তাহলে আমার মন্তব্য না করাটাই শ্রেয়। কারণ, এটি সম্পূর্ণ যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। আর আমি স্বভাবতই নিজের মতো থাকতে পছন্দ করি। কিন্তু যখন সেখানে আমার কিছু ইস্যু মানুষ নিয়ে আসে, তখন তো স্বাভাবিকভাবে অনেকেই জানতে চাইছে। অনেক ফোনকল পাচ্ছি; এসব নিয়ে যে আমি কীভাবে দেখছি এসব!

বাই দ্য ওয়ে, আমি প্রথমেই একটা জিনিস জানতে চাই, গতকাল কেন অপু বিশ্বাস এত দিনের আড়াল ভেঙে সরাসরি চ্যানেলে গিয়ে এসব কথা বললেন?

কই, এত দিন তো যাননি, কারও সামনে আসতে চাননি…কেন?

কই, সাংবাদিক ভাইয়েরা তো এত চেষ্টা করেও সামনে আনতে পারলেন না। মুখ খোলাতে পারলেন না। বরং আপনারা নাকি যখন জিজ্ঞেস করেছেন, তখন নাকি নানান কথা বলেছেন। তাঁর ভাষ্যমতে, ২০০৮ সাল থেকে তিনি বিবাহিত। তাহলে এত দিন কেন মর্যাদা চাননি? শাকিব না হয় লুকিয়েছেন, তিনি লুকাননি? কেন, ক্যারিয়ারের জন্য?