নাসার লাইভে দেখা গেল নিবিরু গ্রহ (ভিডিও)

একদল বিজ্ঞানী অনেকদিন ধরেই দাবি করে আসছিলেন, মায়ান সভ্যতার বর্ণিত নিবিরু গ্রহ বা প্ল্যানেট এক্স পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে। যা মানবজাতির ধংসের কারণ হয়ে দাঁড়াবে। এই সৌরজগতের সবচেয়ে দীর্ঘ পথ আবর্তন করা গ্রহটি আদতে কত বছর পর পর পৃথিবীকে ছুঁয়ে যায় সে সম্পর্কে সন্দিহান বিজ্ঞানীরা।

অতীতের হারানো সভ্যতার ইতিহাস ঘেঁটে কারও কারও ধারণা সাড়ে ৩ হাজার বছর অন্তর এই গ্রহ পৃথিবীর খুব কাছ দিয়ে অতিক্রম করে যায়। আর আকৃতিতে বিশাল সেই গ্রহের কারণে পৃথিবীর অবস্থান নড়ে যায়। দুই মেরুর স্থানচ্যুতি ঘটার ফলে পৃথিবীতে দেখা দেয় মহাপ্রলয়।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা’র মতো শক্তিধর দেশগুলোর বিজ্ঞানীরা কিন্তু নিবিরু গ্রহের কথা অস্বীকার করেন না। মায়ান সভ্যতায় বর্ণিত রহস্যময় গ্রহ থাকার সম্ভাবনা তারাও দেখেন।

অদেখা সেই গ্রহের নাম তাই রাখা হয়েছে প্ল্যানেট এক্স। এই এক্স (X) কে যেমন সৌরজগতের ১০ম গ্রহ হিসেবে ব্যাখ্যা করা যায়, তেমনই দেখা যেতে পারে কাল্পনিক অর্থেও।

মায়ানদের বর্ণনা অনুযায়ী, সৌরজগতে প্রবেশের পরও এই গ্রহকে খালি চোখে দেখা সম্ভব নয়। একমাত্র পৃথিবীর খুব কাছে চলে আসলেই তা দেখা যাবে।

বিশাল আকারের সেই গ্রহ যখন পৃথিবীর খুব কাছাকাছি চলে আসবে তখন দিনের আলোয় মনে হবে আকাশে সূর্য দেখা দিয়েছে দু’টি। রাতের আকাশেও লাল রং ধারণ করে ক্রমেই তা আকারে বড় হতে থাকবে।

রাতে কিংবা দিনের আকাশে এমন কোনো আলামত চোখে পড়ে না বলেই সম্ভবত মায়ানদের এসব বর্ণনা শুধুই কল্পনার মায়াজাল বলে মনে করে থাকেন অধিকাংশ বিজ্ঞানী এবং সাধারণ মানুষ। তবে পৃথিবীর একাধিক স্থান থেকে কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন কিছু ভিডিও ও ছবি প্রকাশ করেছেন, যা দেখে মনে হয় যে কাল্পনিক সেই গ্রহ সম্ভবত বাস্তবে ধরা দিচ্ছে।

তবে অধিকাংশ মানুষই এমন দাবির বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করেন না। কেননা অতীতেও এমন মিথ্যা গুজব ছড়াতে দেখেছে মানুষ।

সম্প্রতি নাসা’র প্রচারিত আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন বা আইএসএস’র লাইভ ভিডিও নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনার জন্ম দিয়েছে। সেই ভিডিওতে রহস্যময় লাল একটি বস্তুকে দেখা গিয়েছে। তবে সেটি যে আসলে কি, সে সম্পর্কে কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারেননি কেউ।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি স্টার প্রতিবেদনে জানায়, মঙ্গলবার রাতে প্রচারিত ওই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই প্রায় ৩ হাজার মানুষ তা দেখে ফেলেন। ইউটিউবে’র ইউএফও ম্যানিয়া পেজে ভিডিওটি প্রথম আপলোড করা হয়। যা দেখে কেউ কেউ মন্তব্য করেন, অবশেষে দেখা দিয়েছে রহস্যময় নিবিরু গ্রহ।

ভিডিওটি দেখে কেউ কেউ আবার মন্তব্য করেছেন, মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা আসলে নিজেরা স্বীকার না করে কৌশলে মানুষকে বিষয়টি জানিয়ে দিতে চায়। আর সেই কৌশলের অংশ হিসেবেই এই ভিডিওটি তারা দেখাচ্ছে।